Datascape

তরুণ গবেষক তৈরিতে কাজ করবে ডাটাস্ক্যাপ রিসার্চ এন্ড কনসালটেন্সি লিমিটেড

বিজ্ঞপ্তি:
গত একযুগে বাংলাদেশের অর্থনীতিতে ব্যাপক উন্নয়ন সাধিত হয়েছে। ২০৪১ সালে উন্নত দেশের কাতারে দাড়ানোর স্বপ্ন দেখছে বাংলাদেশ। দেশের মোট জিডিপি, অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি, মাথা পিছু আয়, জিডিপি প্রবৃদ্ধির হার সহ অন্যান্য উন্নয়ন সূচকের অভাবনীয় অগ্রগতি এবং সরকারের সময় উপযোগী দিকনির্দেশনায় দ্রুত এগিয়ে চলেছে দেশ। অর্থনৈতিক উন্নয়নের সাথে পাল্লা দিয়ে বাংলাদেশের গবেষণা ক্ষেত্রে তেমন উন্নয়ন হয়নি যেখানে একটি দেশের টেকসই উন্নয়নে গবেষণা অপরিহার্য। অর্থনৈতিক উন্নয়নের সাথে সাথে আমরা যদি শিক্ষা ও গবেষণা খাতকে বিশ্বমানে উন্নত না করতে পারি তাহলে অদূর ভবিষ্যতে আমাদের এ উন্নয়ন মুখ থুবড়ে পড়বে।

বাংলাদেশের বিশ্ববিদ্যালয় গুলোতে অধ্যাপকগণের সরাসরি তত্ত্বাবধানে গবেষণার কাজ করার সুযোগ পেয়ে থাকে মুলত পিএইচডি গবেষক/শিক্ষার্থীরা,কিন্তু গবেষণার সংস্কৃতি তৈরির জন্য শিক্ষার্থীদের অনার্স চলাকালীন সময় থেকেই গবেষণার মৌলিক বিষয় গুলো সম্পর্কে বিস্তর ধারণা এবং ব্যবহারিক জ্ঞানার্জন করতে হয়।

চলমান এই শুন্যতা পূরণের লক্ষ্যে ডাটাস্ক্যাপ হাতে নিয়েছে ইউথ রিসার্চার প্রোগ্রাম বা তরুন গবেষক কার্যক্রম। বিগত সাত বছর ধরে ডাটাস্ক্যাপ রিসার্চ এন্ড কনসালটেন্সি লিমিটেড একটি স্বতন্ত্র গবেষণা প্রতিষ্ঠান হিসেবে বিভিন্ন জাতীয় ও আর্ন্তজাতিক উন্নয়ন সংগঠনের হয়ে বিভিন সামাজিক গবেষণা ও মাল্টিন্যাশনাল এবং ন্যাশনাল ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠানের হয়ে বাজার গবেষণার কাজে সুনামের সাথে অবদান রেখে চলেছে। গবেষণার পাশাপাশি ডাটাস্ক্যাপ দক্ষতা উন্নয়ন এবং তরুন গবেষক তৈরির লক্ষ্যে প্রতিনিয়ত বিভিন্ন ধরনের প্রশিক্ষণের আয়োজন করে যাচ্ছে।

তরুণ শিক্ষার্থীদের গবেষণায় আগ্রহী করে তোলা এবং হাতে কলমে গবেষণার প্রাথমিক বিষয়াদি শিক্ষা দেবার জন্য এই ব্যতিক্রম ধর্মী কার্যক্রম হতে নিয়েছে ডাটাস্ক্যাপ। তরুন গবেষক কার্যক্রমের মাধ্যমে ২০২২ সালে প্রশিক্ষত ১০০ জন তরুন গবেষক তৈরিতে কাজ করবে সংস্থাটি। দেশ বির্নিমাণে ভালো মানের গবেষণা হবে দেশের তরুণদের হাতধরে। ৬ মাসব্যাপী এই কার্যক্রমে দেশের সরকারি বেসরকারি বিশ^বিদ্যালয়ের শিক্ষক ও গবেষকগণ সেশন পরিচালনা করবেন এবং গবেষণাদিক নির্দেশনা প্রদান করবেন যেখানে জটিল বিষয় গুলোকে সরল ভাবে উপস্থাপন করা হয়েছে। প্রতিটি শিক্ষার্থী ৬মাস যাবত একজন গবেষকের তত্ববধানে থেকে গবেষণার থিওরিটিক্যাল এবং প্রাক্টিক্যাল জ্ঞানার্জন করতে পারবে যার দ্বারা দেশের অসংখ্য স্বপ্নময় তরুণ জাতীয় ও আন্তর্জাতিক পর্যায়ে নিজের ক্যারিয়ার গড়তে সক্ষম হবে বলে আমরা বিশ্বাস করি। ইউথ রিসার্চের প্রোগ্রাম বা তরুন গবেষক কার্যক্রমের মাধ্যমে একজন শিক্ষার্থীকে গবেষণা প্রস্তাবনা তৈরি, তথ্য সংগ্রহ, তথ্য বিশ্লেষণ এবং প্রতিবেদন প্রস্তুতকরণ বিষয়ে বিস্তারিতআলোচনাকরা হবে। মেয়াদ শেষে একটি সার্টিফিকেট প্রদান করা হবে। প্রশিক্ষণ লদ্ধ জ্ঞান ব্যবহার করে যেমন একজন শিক্ষার্থী গবেষণায় সিদ্ধহস্ত হবেন তেমনি কর্মক্ষেত্রে ও একধাপ এগিয়ে থাকতে পারবেন। অফিসে প্রায় সকলকেই বিভিন্ন ধরনের রিপোর্ট তৈরি করতে হয় অথবা কোন তথ্য বিশ্লেষণ করে উপস্থাপন করতে হয়। এক কার্যক্রমের মাধ্যমে একজন শিক্ষার্থী তার প্রয়োজন মতো তথ্যের বিশ্লেষণ করে রিপোর্ট বা প্রেজেন্টেশন তৈরিতে সক্ষম হবেন। শুন্য থেকে কিভাবে গবেষণা শুরু করবেন তার বিস্তারিত দিকনির্দেশনা প্রদান করাহ য়েছে এই ইউথ রিসার্চর প্রোগ্রাম বা তরুন গবেষক কার্যক্রমের মাধ্যমে।

প্রতি নিয়তই সামাজিক জীবনে পরির্বতন হচ্ছে। সমাজে বিদ্যামান সমস্যার সাথে নতুন নতুন সমস্যার যুক্ত হচ্ছে। এসব সমস্যার প্রকৃতি, পরিধি, প্রভাব, সমাধান পদ্ধতিই ত্যাদি বিষয়ে জানা মানুষের কৌতুহলী মনের সন্তুষ্টির জন্যই কেবল নয় বরং সামাজিক প্রয়োজন ও বটে। কাজেই সামাজিক গবেষণার ক্ষেত্র ক্রমশ বৃদ্ধি পাচ্ছে। অন্যদিকে সাম্প্রতিক কালে সকল শিল্প জুড়ে সুগভীর রুপান্তর ও পরির্বতন সাধিত হয়েছে। বিশেষ করে করোনা মহামারীর শুরুর পর থেকে। নতুন ব্যবসায়িক মডেলের উত্থান ঘটেছে, পুরাতন উৎপাদন, পরিবহন আর বন্টনের রুপ পেয়েছে। ব্যবসা-বাণিজ্যের প্রসারও নতুন নতুন ব্যবসাই কৌশল উদ্ভাবনের মধ্যমে প্রতিযোগিতা মূলক অর্থনীতিতে টিকে থাকতে বাজার গবেষণার গুরুত্ব ক্রমাত ভাবে বৃদ্ধি পাচ্ছে। তথ্য প্রযুক্তির উন্নয়নের সাথে সাথে গবেষণার এই ক্ষেত্র আরও বড় হবে।

উক্ত অনুষ্ঠানে ডাটাস্ক্যাপ রিসার্চ এন্ড কনসালটেন্সি লিমিটেডের ম্যানেজিং ডিরেক্টর জনাব রাকিব হোসেন বলেন, তরুণ গবেষক তৈরিতে আমাদের ইউথ রিসার্চার প্রোগ্রাম বা তরুণ গবেষক কার্যক্রম চলমান থাকবে। আমরা চেষ্ঠা করছি বিভিন্ন গবেষণা প্রতিষ্ঠানের সাথে সমন্নয় করে অংশ গ্রহণকারীদের সব থেকে ভালো মানের সহায়তা নিশ্চিত করতে। আমরা ভবিষ্যতে ডাটাস্ক্যাপ রিসার্চ ফান্ড গঠন করবো যেখান থেকে তরুণ গবেষকগণ তাদের গবেষণা ব্যয় বহন করতে পারবে যেটি তরুণ গবেষক তৈরিতে আরও বেশি অবদান রাখবে। তিনি দেশের সকল গবেষকদের এক হয়ে টেকসই উন্নয়নের লক্ষ্যেতরুণ গবেষক তৈরিতে কাজ করার আহ্বান জানান। ইউথ রিসার্চার প্রোগ্রাম বা তরুণ গবেষক কার্যক্রম অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন। ডাটাস্ক্যাপ রিসার্চ এন্ড কনসালটেন্সি লিমিটেড কে ধন্যবাদ জানায় এমন একটি মহৎ উদ্যোগ গ্রহণ করার জন্য।

ডাটাস্ক্যাপ রির্সাচ এন্ড কনসালটেন্সি লিমিটেডের ডিরেক্টর জনাব মাহমুদুন নবী সোহেল বলেন, যারা ভবিষ্যতে এই ডেভেলপমেন্ট ফিল্ডে নিজেদের ক্যারিয়ার গড়তে চায়, তাদের জন্য এই প্রোগ্রামে অংশ গ্রহণ অত্যন্ত ফলপ্রসু ভূমিকা রাখবে।

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগের স্বনামধন্য সহযোগী অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ রায়হান শরীফ বলেন, “আমি আশা করি যে, এই প্রশিক্ষণ কর্মশালায় অংশ গ্রহণের মাধ্যমে বর্তমানের যুব সম্প্রদায় নিজেকে ভবিষ্যতে একজন সুপ্রতিষ্ঠিত গবেষক হিসেবে নিজেকে তৈরি করতে পারবে।”

বিশিষ্ট সমাজবিজ্ঞানী ও গবেষক অসীম কুমার সাহা বলেন, বর্তমানের বিভিন্ন বিশ্ব বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী এই প্রশিক্ষণ সুনিপুণ ভাবে সম্পন্ন করার মাধ্যমে তারা ভবিষ্যতে নিজেদের ক্যারিয়ার ডেভেলপমেন্ট এবং গবেষণা কাজে নিজেকে আরও ভাল ভাবে সম্পৃক্ত করতে পারবে।

Share this: